বিবিধ

ফারাও-এর জার্নাল (দ্বিতীয় কিস্তি)

পথিক মিত্র June 11, 2022 at 6:32 am বিবিধ ৫৪

(প্রথম কিস্তির পর)

মরীচিকা 

ধূ-ধূ মরুভূমির বুক চিরে কালো পিচের হাইওয়ে। যেদিকে দুচোখ যায় শুধু বালি আর বালি। নেই বসতি, নেই জনজীবন, নেই আড়ম্বর, নেই উদযাপন। কিছু পাথরের টিলা আর বোল্ডার, সুর্যের তেজে উত্তপ্ত দিগন্ত প্রান্তর। আবু সিম্বল থেকে আসওয়ান ফেরার পথটা এরকমই ।

হঠাৎই আমাদের তন্দ্রা কাটিয়ে গাড়ি থামল। সামান্য টয়লেট যাওয়া। কিন্তু টয়লেট সেরে যেই মুখ তুলে তাকালাম, স্পষ্ট দেখা গেল হাইওয়ের ওপারে জল। প্রায় জলাশয়ই বলা যায়। টলটলে জল, হালকা দুলছে।

মিশরে আসার পর থেকে আমার ইতিহাস ও ভূগোল ক্লাসের কথা বারবারই মনে পড়েছে। কিন্তু আজ মনে পড়লো ফিজিক্স ক্লাসের কথা। পূর্ণ অভন্তরীণ প্রতিফলন বা ‘Total Internal Reflection’, যা সৃষ্টি করে Mirage বা মরীচিকা।

চোখে না দেখলে এ জিনিস বিশ্বাস করা অসম্ভব। সম্পূর্ণ মিথ্যা জেনেও কোন জিনিসকে বিশ্বাস করার প্রবল ইচ্ছে জাগিয়ে তোলে মরীচিকা। আগে নাকি প্রচুর বেদুইন মরীচিকার পিছনে ছুটে প্রাণ হারাত। আজ সেসব অতীত। কিন্তু মরীচিকা কী নাগরিক জীবনেও নেই?

আমরা urban nomad-রা কি একদম ছুটি না মরীচিকার পিছনে? অফিসের প্রমোশন, আর একটু বড় ফ্ল্যাট, আর একটা গাড়ি, প্রাক্তন প্রেমিকা, বন্ধুর স্ত্রী, ‘আচ্ছে দিন’ এরকম কত মরীচিকার পিছনে রোজ অবিরাম ছুটে চলেছি - নিজেদেরই খেয়াল থাকে না।

কিন্তু ছুটে যেতেই হবে। এটাই আমাদের ট্রাজেডি, আবার এটাই তো জীবন। 

"Enjoy the Journey as the destination is a mirage"

- Steven Furtick



.................................................................. 

ভাঙাভাঙির গল্প (আবু-সিম্বল)

মসজিদ ভাঙে ধার্মিকেরা,

মন্দির ভাঙে ধার্মিকেরা,

তারপর দাবি করে তারা ধার্মিক,

আর যারা ভাঙাভাঙিতে নেই,

তারা নাস্তিক ও অধার্মিক!

-  হুমায়ূন আহমেদ


ইতিহাস সাক্ষী আছে যে সভ্যতার জন্মলগ্ন থেকে কিছু মানুষ গড়ে আর কিছু ক্ষমতালোভী মূর্খ সেই সৃষ্টিকে ভেঙে নষ্ট করে। মজার কথা হল ভারতে আজকাল পুরাণ, ইতিহাস, মহাকাব্য, রূপকথা, হোয়াটসঅ্যাপ চুটকি মিশিয়ে এমন এক ককটেল সার্ভ করা হচ্ছে যে আমাদের নিজেদেরই সব গুলিয়ে যাবার জো। আর সেই ককটেলের নেশাতে আমরা ধর্মের নামে নির্দ্বিধায় ঐতিহাসিক সব নির্মাণ গুঁড়িয়ে দিতে তৈরি। 

কাল আমরা আবু সিম্বল গেছিলাম। ৩৫০০ বছর আগের শিল্পকলা ও ভাস্কর্যের নমুনা দেখে আমার মতো আর্ট-অজ্ঞেরও হাঁ বন্ধ হতে চাইছিল না। ফারাও দ্বিতীয় রামসেস নিজের মন্দিরের পাশেই বানান নিজের স্ত্রী নেফারতারির মন্দির। সেখানে আবার রাজা ও রানির মূর্তির মাপ সমান। মিশরের ইতিহাসে এ ঘটনা বিরল। এটা প্রেম না ফেমিনিজম তা নিয়ে তর্ক আপাতত তোলা রইল। 

কাট-টু ১৯৭০। প্রেসিডেন্ট নাসির মিশর কে বন্যা ও অনাবৃষ্টি থেকে বাঁচাতে নীল নদের উপর বানাবেন হাই-ড্যাম। কিন্তু গেরো করল আবু সিম্বল মন্দির। এমনিতেই জল ঢুকে অনেক দিন ধরে রং নষ্ট হচ্ছিল, কিন্তু বাঁধ হলে তো পুরো জলের তলায়। তাহলে উপায়?

এবার তাহলে ভাঙাই হোক। কিন্তু গড়ার জন্য। অবিশ্বাস্যভাবে তারা পুরো মন্দিরটাকে টুকরো করে কাটল। বলাই বাহুল্য, অতি সাবধানে। টুকরোগুলো ২ টনের অধিক ওজন।‌ একটি কৃত্রিম পাহাড়ের উপর নিখুঁতভাবে আবার মাথা তুলে দাঁড়াল আবু-সিম্বলের বিরল ভাস্কর্য। নীলনদের বাঁধও হল, এদিকে মন্দির ভেঙেও ভাঙল না। এইভাবেই আসওয়ানের ফিলাই মন্দিরও প্রতিস্থাপিত হয়। মিশর আজ একটি মুসলিম রাষ্ট্র কিন্তু, ৩০০০ BC-র মিশরীয় ধর্মের সঙ্গে ইসলামের কোনও সম্পর্ক নেই। সে সময়টুকু যেন তাদের ইতিহাসের সোনায় মোড়া এক অধ্যায়‌। তা তাদের গর্বের জায়গা। 

লাক্সর মন্দিরে আর একটা অদ্ভুত জিনিস দেখলাম যেটার কথা না বললেই নয়। একটি ১১০০ বছর আগের মসজিদ, যার দরজা  মাটি থেকে প্রায় ১৪ ফুট উপর। খুব আশ্চর্য। খোঁজ নিয়ে যা জানলাম খুব ভালো লাগল। ৬০ AD তে খ্রিস্টধর্ম মিশরে আসে। তখন মসনদে রোমানরা। ৩০০ AD নাগাদ  লাক্সরে একটি গির্জা নির্মাণ করেন খ্রিস্টানরা। ১৫০ বছর পর রোমানরা সেই গির্জা তছনছ করে। তারপর আরও অনেক স্থাপত্যের মতোই মরুভূমির বুকে হারিয়ে যায় এই গির্জা।



ছবি : আবু-সিম্বল মন্দির


৬৪৫ AD নাগাদ অমর ইবন অলসের হাত ধরে ইসলাম আসে মিশরে। আগামী ৩৫০ বছর ইসলাম ধর্মে দীক্ষিত হন প্রচুর মানুষ। ১০০০AD নাগাদ লাক্সরে অনেক মসজিদ স্থাপন করে তারা। দেখুন মজাটা। মসজিদ তৈরি হল একটি টিলার উপরে, যার নিচে ঘুমিয়ে ছিল সেই গির্জা। তাহলে কি দাঁড়াল? ফারাওদের মন্দির, গির্জা ও মসজিদ এক চত্বরে। মসজিদের ঠিক তলায় গির্জা! 



ছবি : নীচে গির্জা আর উপরে মসজিদ (লাক্সার


কাট টু 1980। UNESCO-র স্বীকৃতি পেয়েছে লাক্সর মন্দির। গোটা মন্দির আবিষ্কার হয়েছে মরুভূমির বুকে। মসজিদের দরজা এখন শুন্যে। কারণ তলায় গির্জা। এখন মিশর কিন্তু ইসলামিক স্টেট। পুরো চত্বরটাকে সযত্নে সাজিয়ে তুলে সারা পৃথিবীর ভ্রমণপিপাসুদের আহবান করল মিশর। চাইলেই কিন্তু গির্জা গুঁড়িয়ে ঝাঁ-চকচকে মসজিদ নির্মাণ করতেই পারত। তারা তা করেনি।

যারা ধর্মের দোহাই দিয়ে শিল্প কে ধংস করে তারা বর্বর, ইতর। সে তালিবান হোক বা হনুমান। নিজেদের ধর্মের কলঙ্ক তারা।

....................................... 


সোবেক ও মিশরীয় উপকথা


মিশর বলে কথা। মানবসভ্যতার আঁতুরঘর বললে খুব বাড়িয়ে বলা হয় না। এখানে কুমিরের ভগবান হয়ে ওঠাও একটা গল্প।

সব সভ্যতাই তাদের আরাধ্য দেবতাদের সৃষ্টি করে একই ছক মেনে। প্রাকৃতিক শক্তি, যাদের কাছে মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, অসহায় বোধ করেছে - তারাই পেয়েছে দেবতার স্ট্যাটাস। মানে, যদি তাদের তুষ্ট রাখা যায় আরকি। প্রাথমিক ভাবে সব সভ্যতাতেই বায়ু, জল, সূর্য ইত্যাদির পূজার প্রবণতা দেখা যায়। উদাহরণ হিসেবে মায়ান সভ্যতার সূর্য দেবতা 'আহকিন', ইনকাদের 'ইনতি', চিনের ‘ডৌমু’ , ও মিশরীয়দের 'আমুন রা'! 

নীল নদের তীরে কিন্তু প্রধানত কৃষিগত কারণে মিশরের জন্ম। অর্থাৎ ধূ-ধূ সাহারা মরুভূমির বুকে নীল নদই ছিল মিশরীয়দের একমাত্র অবলম্বন। এ ক্ষেত্রে অফ-টপিক একটি ট্রিভিয়া না দিয়ে পারলাম না। ‘সাহারা’ কথাটির আক্ষরিক অর্থ হল মরুভূমি তাই সাহারার পর আলাদা করে মরুভূমি শব্দটা মিশরীয়দের কাছে হাস্যকর। ফেরা যাক মূল গল্পে।

সমস্যা বাঁধল এবার নীল নদের মনুষ্যেতর অধিবাসীদের সঙ্গে, যারা মানুষের অনেক আগে থেকেই এলাকায় দাপিয়ে বেড়িয়েছে। নীল নদের কুমির। নীল নদের বিভীষিকা। শুরু হল মানুষ-কুমির সংঘাত। ফলে স্বাভাবিক নিয়মে এলেন দেবতা-অপদেবতার মাঝামাঝি কুমির-বদন দেবতা সোবেক। আর কী চাই? একদিকে কুমিরের দৌরাত্ম্য বাড়ছে, অন্য দিকে বাড়ছে সোবেকের স্টাটাস ও ফলোয়ার।

এ ছাড়াও আর একটা কারণ ছিল। কুমির সাধারণত বন্যা আঁচ করতে পারে। বন্যার পূর্বাভাস পেলেই তারা দিন পনেরো আগেই গভীর জলে চলে যেত। তাদের এই আচরণ থেকেই মানুষ বন্যার প্রস্তুতি নিতে পারত। সমীকরণটা সহজ। যারা ভবিষ্যত বলতে পারে, তারা নিঃসন্দেহে ভগবানের দূত।

মজার বিষয় হল সোবেক কিন্তু আবার উর্বরতার দেবতাও। মহিলাদের গর্ভবতী হওয়ার জন্য সোবেক-কে পুজো করার রীতি ছিল। অবাক করার মতো কথা হল,  কিছু উপকথা অনুযায়ী সোবেক আবার যৌন হেনস্থাকারী এক অপদেবতা, যে নগ্ন মহিলাদের চুরি করে নরকের গুপ্তকুঠিতে যৌনদাসী বানিয়ে রেখে দেয়। মজার কথা দেখুন, নিশ্চয় নীল নদে স্নান করতে গিয়ে বেশ কিছু মহিলা শিকার হন কুমিরের। স্বাভাবিক কারণেই তাদের মৃত দেহ উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। তাই গুজব আস্তে আস্তে উপকথার রূপ নিয়েছে। 



ছবি : কুমিরের মমি 


ইতিহাস সাক্ষী আছে যে যুগে যুগে রাজনৈতিক নেতারা ধর্মভীতিকে সুন্দর করে নিজেদের স্বার্থে ব্যবহার করে নিয়েছেন। আমরা যে সময়ের কথা বলছি সে সময়ও এর ব্যাতিক্রম নয়। যেসব অঞ্চলে কুমিরের উপদ্রব বেশি সেখানে গজিয়ে উঠল সোবেকের একাধিক মন্দির। এগুলো আবার উৎকৃষ্ট শিল্পকলার নিদর্শনও বটে। যেমন, কোমোম্বোর সোবেক মন্দির। কিছু কিছু ফারাও নিজেদেরকে সোবেকের আশীর্বাদধন্য প্রমাণ করার জন্য নিজেদের নাম পরিবর্তন করতে শুরু করেন। যেমন, ফারাও সোবেকনেফরূ (অর্থাৎ সোবেকের সেবক)। 

খ্রিস্টপূর্ব ৩৩০ সালে সম্রাট আলেকজান্ডারের হাত ধরে মিশর দখল করল গ্রীকরা। তারা মিশরীয়দের সঙ্গে কিন্তু নিজেদের বেশ মানিয়ে-গুছিয়ে নিল । জন্ম হল এক উৎকৃষ্ট মিশ্র-সংস্কৃতির। এই জাতিগত সংমিশ্রণের ফল টলেমি রাজবংশ, যাদের শেষ রানি ক্লিওপেট্রা। অনেকেই যদিও তাঁকে মিশরীয় ভাবেন কিন্তু তাঁর আদি বংশের সঙ্গে গ্রীকদের যোগ আছে। 

এই টলেমি বংশের এক ফারাও-এর ছেলে নদীর তীরে খেলতে গিয়ে কুমির বাবাজির লাঞ্চ হয়ে যায়। ক্রুদ্ধ ফারাও সব ভুলে আদেশ দিয়ে দিলেন - সব কুমির মারো। হত্যা করা হয় ৩৫০ টির কাছাকাছি কুমির। কিন্তু হুঁশ ফিরতে সোবেকের অভিশাপের ভয় তাঁকে পেয়ে বসল। ফলে ফারাও ঘটা করে মমি বানিয়ে কুমিরদের কবরও দিলেন। কোমোম্বো মন্দিরের ঠিক পাশেই। আজ সেই জায়গায় সোবেক সিমেট্রি, যেখানে কুমিরের, থুড়ি 'সোবেক রা' এর মমি সংরক্ষিত আছে। 

ভাগ্যের কী নির্মম পরিহাস দেখুন। একদা নীল নদের ত্রাস, একাধারে দেবতা ও অপদেবতার তকমা পাওয়া ‘দ্য গ্রেট নাইল অ্যালিগেটর’ এখন একটি বিপন্ন প্রজাতি। তাহলে ভাবুন আসল অপদেবতাট আসলে কারা? "Crocodilus nilotictus" নাকি "Homo sapiens sapiens"? 


ছবি : সোবেক-এর মূর্তি

......................................................... 


Let Matriarchy begin

"Empieza el matriarcado" বা "Let Matriarchy begin" ডায়লগটা ‘Money Heist’ নামক স্পেনীয় ওয়েব সিরিজের দৌলতে জনপ্রিয়তা পেয়েছে। কিন্তু মিশরের ইতিহাসে মাতৃতন্ত্রের জনপ্রিয়তা কিন্তু ৩৫০০ বছর পুরনো। তার আগে পর্যন্ত এক-একজন ফারাও-এর ৫০ থেকে ৭৫ জন পর্যন্ত স্ত্রী থাকতেন। একজন অন্তঃসত্ত্বা হলেই, ফারাও খুঁজে নিতেন তার পরবর্তী শয্যাসঙ্গিনীকে। আর গর্ভবতী স্ত্রী অপেক্ষায় থাকতেন পুত্রসন্তানের। প্রথম পুত্রের জননী পেতেন পাটরানির সম্মান। রাজপরিবারের অন্যান্য নারীদের অবস্থাও খুব সুখকর ছিল না। যেহেতু রাজপরিবারগুলি নিজেদের বংশে বাইরের রক্ত আনতে নারাজ ছিলেন, তাই অধিকাংশ ক্ষেত্রে আপন ভাইয়ের সন্তানের জন্ম দিতে হত তাদের। পুত্রসন্তানের জন্মের পর তার রাজা হওয়ার সম্ভাবনার ওপর নির্ভর করত রানির সম্মান। শুধু ফারাওর মা এবং তার প্রথম পুত্রসন্তানের মায়ের জুটত প্রকৃত রানির মর্যাদা ও ছোটোখাটো একটা পিরামিড। আর বাকিরা হারিয়ে যেতেন কালের স্রোতে।
১৫০৭ BC-তে জন্ম হয় হাচিপসুর। তার পিতা ফারাও প্রথম টুটমোস। তার ছোট ভাই ও স্বামী ফারাও দ্বিতীয় টুটমোস। পিতার প্রথম সন্তান হওয়া সত্ত্বেও নারী হওয়ায় তাঁর মসনদ পাবার জো নেই। হাচিপসুর প্রথম কন্যা সন্তানের জন্মের পর তিনি আর মা হতে পারেননি। এর মধ্যে দ্বিতীয় টুটমোস মারা যান। হাচিপসুর রানি হওয়ার স্বপ্ন তখন অসম্ভব। ফারাও হবেন দ্বিতীয় টুটমোস-এর পুত্র তৃতীয় টুটমোস। যেহেতু সে তখনও নাবালক, তাই তার অভিভাবক হিসেবে শাসন ভার পেলেন হাচিপসু।
যদিও এরকম অভিভাবকের উদাহরণ মিশরের ইতিহাসে অনেক আছে ,তবু হাচিপসু অনন্য। এই অভিভাবকের আসন থেকেই মিশরের ইতিহাসে অন্যতম মহিলা-ফারাও হিসেবে ২১ বছর জাঁকিয়ে শাসন করলেন হাচিপসু। নিজের শাসনকালে অসামান্য কূটনৈতিক বুদ্ধি ও রাজনৈতিক দূরদর্শিতার পরিচয় দেন হাচিপসু। হাত মেলান পুরোহিতদের সঙ্গে। তাঁদের প্রচারে ফারাও থেকে প্রজাদের নজরে প্রায় ঈশ্বরের মর্যাদা পান হাচিপসু। দেশের বিভিন্ন জায়গায় তৈরি করেন অনেক মন্দির, খিলান, মূর্তি। সমস্ত মন্দিরের গায়ে খোদাই করান অসাধারণ সব শিল্পকলা, যেখানে কেবল ফারাও-এরই জয়গান। মজার বিষয় হল, পাছে নারী বলে প্রজারা তাঁকে অবজ্ঞা করেন, এই সম্ভবনা এড়াতে নিজের মূর্তির দেহটি আগাগোড়া একটি বলশালী পুরুষের মত তৈরি করাতেন হাচিপসু। নিজে ব্যবহার করতেন ফারাওদের প্রথামাফিক পোশাক, মুকুট ও দাড়ি। কিন্তু যেহেতু অপরূপা সুন্দরী ছিলেন, তাই মূর্তির মুখগুলো কিন্তু তাঁর নিজের আদলেই হত। 



ছবি : রানি হাচিপসুর স্ফিনক্স (কাইরো মিউজিয়াম) 

এই ২১ বছরের রাজত্বকালে কিন্ত হাচিপসু বেশ কিছুদিন যুবক রাজকুমার দ্বিতীয় টুটমোস-কে ফারাও হতে দেননি। তাই তার সৎ মায়ের প্রতি প্রগাঢ় ঈর্ষা ছিল তৃতীয় টুটমোস-এর। হাচিপসুর ঈশ্বরতুল্য জনপ্রিয়তা এই ঈর্ষাকে তীব্র ঘৃণায় পরিণত করে। সৎ মায়ের মৃত্যুর পর যখন তৃতীয় টুটমোস ক্ষমতায় আসেন, তখন অধিকাংশ মন্দিরের গা থেকে হাচিপসুর সুন্দরী মুখটিকে তিনি ধংস করেছিলেন। 
অথচ ইতিহাস সাক্ষী আছে, পুরুষতন্ত্র বারংবার ব্যতিক্রমী নারীদের মুছে ফেলতে চেয়ে ব্যর্থ হয়েছে। লুক্সরের কার্ণাক মন্দিরের দেয়ালে হাচিপসু কিন্তু আজও বহাল তবিয়তে দেবতাদের সংসর্গ করছেন। বরং হারিয়ে গেছে তৃতীয় টুটমোসের চিহ্ন। পুরুষতন্ত্রের বিরুদ্ধে নারীবাদের প্রথম পর্যায়ের লড়াইয়ের একটি মাইলফলক বলা যায় হাচিপসুকে। 
................................................... 

কোশারি নিয়ে দু-চার কথা


বাঙালী যে দেশেই যাক না কেন, খাবার আলোচনা হতেই হবে। তাহলে মিশরই বা বাদ যায় কেন? তবে এখানেই আসছে আরেকটা মজার কথা। ভাবতে পারেন কাবাব, স্বারমার জন্য বিখ্যাত দেশের জাতীয় খাবার কিনা নিরামিষ? আমরা তো বাইরে পয়সা দিয়ে ভেজ খেতে গেলেই নাক সিটকাই, সেখানে কিনা কাবাবের গন্ধ নাকে নিয়ে কোশারি খাব? কিন্তু মিশরের জাতীয় খাবারটি নাকি ইতালিয়ান ও আরব্য রন্ধন-প্রণালির জবরদস্ত ফিউশন। ভাত, অঙ্কুরিত ডাল, কাবুলি ছোলা সাথে মিশে যাচ্ছে পেনি পাস্তা, গরম মেক্সিকান সালসা সস এবং পেঁয়াজের বারিস্তা। উপর থেকে ছিটিয়ে দেওয়া হচ্ছে গারলিক ভিনিগার। 
আবু তারেক-এর রেস্তুরাটা তিনতলা। মেনুতে শুধুমাত্র নানারকমের কোশারি। 



ছবি : কোশারি 

ভাবতে অদ্ভুত লাগে এই খাবারের জন্ম হয়েছে গরীব বেদুইনদের ঘরে।  আমিষ কেনার সামর্থ্য নেই। ফ্রিজ আবিষ্কার হয়নি। রুটি বেশ দামি। বাড়িতে পর্যাপ্ত পরিমাণে ডাল, ভাত কিছুই নেই। কী করবেন বাড়ির মহিলারা? টেকনিকটা সেই এক, যা আমাদের মা-মাসিমারা করে থাকতেন। সব মিশিয়ে গরম টমাটোর সস দিয়ে খেয়ে নিন। ব্যাপারটা শুনে অনেকেই ভাবছেন এ আর এমন কী ব্যাপার। কিন্তু যখন খাবারটা খাবেন, বুঝতে পারবেন যে কোশারি যে কোনও আমিষ খাবারকে বলে বলে দশ গোল দেওয়ার ক্ষমতা রাখে। বেরেস্তা ও গরম সস সহযোগে ব্যাপারটা যখন মুখে ঢোকাবেন, সেই মুহূর্তেই মুখের ভিতর এক আশ্চর্য জাদুর খেলা শুরু হয়ে যাবে। মিশরীয় নিম্নবিত্ত বাড়ির মায়েদের শতাব্দীপ্রাচীন রেসিপি আপনাকে মুগ্ধ করবেই।

তাহলে প্ল্যান ছকেই ফেলুন। পরের ট্যুরের ভেন্যু হোক মিশর। 

...............................................

                

#Egypt #Pyramid #Travelogue #মিশর #silly পয়েন্ট #ভ্রমণ #Web Portal

Leave a comment

All fields are required. Comment will appear after it is approved.

trending posts

newsletter

Connect With Us

today's visitors

46

Unique Visitors

121569